By | February 18, 2018

ফরেক্স হচ্ছে বৈদেশিক মুদ্রার (বৈদেশিক বিনিময় বাজার বা মুদ্রা বাজার) বিনিময় একটি উদয়মান এবং উন্নয়নশীল বাজার, যার দৈনিক টার্নওভার বিশ্বের সব আর্থিক বাজারের ছাইতেও বেশী। ইন্টারন্যাশনাল সেটেলমেন্টের জন্য ব্যাংকের মতে,২০১০ সালে দৈনিক লেনদেনের পরিমাণ দাঁড়ায় 4 ট্রিলিয়ন মার্কিন ডলার, আমেরিকান স্টক এক্সচেঞ্জের দৈনিক লেনদেনের তুলনায়, যা “শুধুমাত্র” ৩০০ বিলিয়ন মার্কিন ডলার।

“বৈদেশিক মুদ্রার বাজারে পরিচালিত সমস্ত Operation বেশ কয়েকটি গ্রুপে ভাগ করা যায়: অনুমানমূলক, হেজিং, ট্রেডিং এবং নিয়ন্ত্রণ।”

বৈদেশিক মুদ্রার ইতিহাস: বিশ্বব্যাপী আর্থিক বাজার কীভাবে পরিচালিত হচ্ছে?

১৯৭১ সালে মুদ্রা বিনিময় বাজারের ইতিহাস শুরু হয়েছিল। আমেরিকার ৩৭ তম প্রেসিডেন্ট, রিচার্ড নিক্সন, ইনিশিয়েটিভ ছিলেন। স্বর্ণের মান বাতিল করার কারণে, স্থিতিশীল মুদ্রার হারের সিস্টেম ধ্বংস হয়ে গিয়েছিল। ডিসেম্বর ১৯৭১সালে স্মিথসোনিয়ান চুক্তির ফলে 4.5% এর মধ্যে (ডলারের বিপরীতে) স্থিতিশীল মুদ্রা বিনিময়ের অনুমতি দেওয়া হয়েছিল ($ 9 এর মধ্যে মুদ্রা জোড়াগুলির জন্য যা USD তে নেই)। একটি নতুন মুদ্রা ব্যবস্থার নীতির সিদ্ধান্ত কিংস্টন (জ্যামাইকা) মধ্যে শুধুমাত্র 8 জানুয়ারী, ১৯৭৬ সালে করা হয়েছিল। সমস্ত অংশগ্রহণকারী – আইএমএফ সদস্যদের স্বর্ণের জন্য সরকারী মূল্য এবং মুদ্রা হারে পরিবর্তনের সীমা নির্ধারণ করতে অস্বীকার করে। মুদ্রা বাজারের উন্নয়নের জন্য যাত্রা শুরু করে।

স্টকগুলোর বিপরীতে, বৈদেশিক মুদ্রা একটি ওভার-দ্য-কাউন্টার (ওটিসি) বাজার, যার কারনে ট্রেডিংয়ের জন্য একটি নির্দিষ্ট স্থান নেই এবং কাজের সময় সেট করে। যে সমস্ত  কারনে লেনদেন বিশ্বের বিভিন্ন ব্যাংকের মধ্যে ঘটে সে সমস্ত ব্যাংক পৃথিবীর চারপাশে বিভিন্ন জায়গায় অবস্থিত, লেনদেন করা হয় 24 ঘন্টা (ব্যাংক ছুটির সময় ব্যতীত)।

সুতরাং, বৈদেশিক মুদ্রার বাজারে অংশগ্রহণকারীরা বিশ্বের (বাণিজ্যিক এবং কেন্দ্রীয়) ব্যাংক সাথে সরাসরি জড়িত হয়ে কাজ করে। বড় বড় সংস্থাগুলো যারা বিদেশী অর্থনৈতিক কার্যকলাপ, বিনিয়োগ এবং হিউজ ফান্ড,  ব্রোকারেজ ফার্ম,  ডিলিং সেন্টারের ব্যক্তিরাও এই প্রক্রিয়ার সাথে জড়িত।

বানিজ্যিক ব্যাংক :
বাণিজ্যিক ব্যাংকগুলো মূল কাজটি করে থাকে। তারা ব্যক্তি ও আইনী সংস্থার কাছ থেকে আমানত গ্রহণ এবং মালিকদের কাছে পরবর্তী অর্থ ফেরত দিয়ে তাদের লক্ষ্য অনুযায়ী কাজ করে।

কেন্দ্রীয় ব্যাংক :
কেন্দ্রীয় ব্যাঙ্কগুলোর মূল লক্ষ্য হচ্ছে তাদের দেশের সরকার ও বাণিজ্যিক ব্যাংকগুলির আর্থিক সেবা প্রদান করা।
তাদের প্রধান কাজ হচ্ছে।

⇒ অর্থ সরবরাহ এবং বিনিময় হার নিয়ন্ত্রণ;
⇒ জাতীয় মুদ্রা নোট নিয়ন্ত্রণ;
⇒ বাণিজ্যিক ব্যাংক থেকে আমানত গ্রহণ এবং  সেইসাথে তাদের কার্যকলাপ নিয়ন্ত্রণ;
⇒ দেশের ঋণ ব্যবস্থাপনা;
⇒ দেশের স্বর্ণ মুদ্রা রিজার্ভের রক্ষণাবেক্ষণ;
⇒ অন্যান্য কেন্দ্রীয় ব্যাংকের সাথে যোগাযোগ।

বৈদেশিক মুদ্রার দিন দিন মানুষকে আর্কষণ করছে কারন বৈদেশিক মুদ্রার উদ্ধমুখীতা থেকে মানুষ উপকৃত হতে চাই।

বড় বড় কর্পোরেশন

বৈদেশিক মুদ্রার মুদ্রা বিনিময় করতে এবং ফরওয়ার্ড করতে, স্বল্পমেয়াদি আমানত পরিচালনার জন্য এবং ভবিষ্যতের চুক্তিগুলোকে হেড করে বৈদেশিক মুদ্রা পরিচালনা করার জন্য বৈদেশিক মুদ্রা ব্যবহার করে বড় কর্পোরেশন। এই কোম্পানি বাণিজ্যিক ব্যাংকের পরিষেবার ব্যবহার করে কারণ তাদের কারেন্সি এক্সচেঞ্জ মার্কে সরাসরি অ্যাক্সেস নেই।

বিনিয়োগ এবং হিউজ পরিমান তহবিল :
যেসব কোম্পানি বিদেশী সম্পদগুলো বহন করে এবং বিনিয়োগকারীর তহবিলগুলোকে বিভিন্ন সিকিউরিটিজ গুলোর মধ্যে রাখে।
বৈদেশিক মুদ্রার কোম্পানি ((Brokers and Dealing Centers)। তারা হচ্ছে এজেন্ট। তারা লেনদেন চালানোর জন্য ক্রেতা এবং বিক্রেতাদের একসাথে নিয়ে আসে। তারা তাদের কাজের জন্য spread যোগ করে এবং সেখান থেকে তারা কমিশন ফি গ্রহণ করে থাকে। আর সে সব ব্যক্তিরা মুদ্রা বিনিময় বা কার্যকালাপের সাথে জড়িত থাকে।  উদাহরণস্বরূপ বলা  অর্থ স্থানান্তর বা বিদেশী দেশগুলোতে ভ্রমণের সময় মুদ্রা বিনিময় করা হয়।

যাই হোক না কেন ফরেক্স এ  কাজ শুরু করার আগে আপনাকে ফরেক্স বিষয়ে মৌলিক জ্ঞান অর্জন করতে হবে যা আপনার ট্রেডিং এ সাহায্য করবে।
আমি আশা করি এই নিবন্ধটি আপনাকে ফরেক্স বাজারের সাধারণ ধারণা পেতে সাহায্য করেছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *